Android Review

Realme C25s ও Walton Primo Hm6 ফোন ২ টি কেনার আগে বাংলা রিভিউ দেখে নিন

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সকলেই ভালো আছেন। আপনাদের কে TechTunar.com এ স্বাগতম। আজকে আমি আপনাদের সাথে দারুন ২ টি ফোনের রিভিউ নিয়ে হাজির হয়ে গেছি।

আমাদের মধ্য অনেকেই হয়তো নতুন ফোন কেনার চেষ্টা করছি কিন্তু, কি ফোন কিনবো, বা কোনটা কিনবো না সেটা নিয়ে অনেক ঝামেলায় আছি। তো আজকে আমি আপনাদের ঝামেলা কিছুটা দূর করার জন্য কম দামি ভালো দুই টি ফোনের রিভিউ করতে যাচ্ছি। তো চলুন আর দেরি না করে আজকের ফোন রিভিউ টি শুরু করা যাক।

1st: Walton Primo Hm6

Walton প্রায়ই নতুন মোবাইল রিলিজ করে থাকে, এবার ও রিলিজ করেছে। তবে একেবারে নতুন তা নয়। ফোন টি ৩ মাস আগে লঞ্চ করেছে।
Walton কোম্পনি বাজারে সদ্য রিলিজ করেছে Walton Primo HM6 মডেলের ফোনটি। এই ফোনটির দাম হচ্ছে ৮,৮৯৯ টাকা। ফোনটির বড় ব্যাটারি এর কারণে ফোনটি কিছুটা, ব্লাকি দেখা যায়। এবং আপনি হাতে নিলেও এটা বুঝতে পারবেন এটির থিকনেস ১০ মিলিমিটার আর এটির ওজন প্রায় ২১৫ গ্রাম। walton সাধারণত চায় কম দামে তাদের কাস্টমারকে ভালো মানের ফোন উপহার দিতে এবং সেই কাজটি তারা খুব ভালো ভাবেই করতে পারে।

ফোনটির ডান দিকে রয়েছে ভলিউম বাটন ও পাওয়ার বাটন। এবং বাম দিকে রয়েছে ডাবল সিম কার্ড স্লট ও ডেডিকেটেড মেমোরি স্লট। একেবারে নিচের দিকে রয়েছে মাইক্রো usb পোর্ট। সাথে রয়েছে মাইক্রোফোন ও স্পিকার । উপরের দিকে রয়েছে 3.5mm এর অডিও জ্যাক। পিছনে রয়েছে ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর এবং ডাবল ক্যামেরা সম্বলিত ক্যামেরা রেয়ার। পিছনে গ্লসি ফিনিস ব্যবহার করা হয়েছে। এতে ডিসপ্লে হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে ৬.৫২ ইঞ্চি এর hd+ রেজুলেশন এর LCD, IPS প্যানেল। এবং তে ব্যবহার করা হয়েছে 270 PPI প্যানেল। টাচ রেস্পন্স টি খুব ভালো দেয় এই ফোন টি। দিনের বেলায় বাড়ির বাইরে মানে আউটডোরে, ডিসপ্লে তে কিছুটা আলো স্বল্পতা দেখা যাবে। তবে ইনডোরে কালার গুলো ডিসপ্লে হিসেবে অনেকটা ভালো রাখা হয়েছে।

ফোনটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে পেয়ে যাবেন Android ভার্সন ১০ go এডিশন। ফোনটিতে প্রসেসর হিসেবে, octore প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। ফোনটিতে র্যাম হিসেবে রাখা হয়েছে ২ জিবি র‍্যাম এবং রম হিসেবে রয়েছে ৩২ জিবি এক্সটার্নাল স্টোরেজ।

ফোনটিতে গেমিং এর খুব বেশি একটা ভালো পারফরম্যান্স পাবেন না৷ পাবজি গেমটি এই ফোনে খেলা যাবে না। তবে একেবারেই খেলা যাবে না এমন টা নয়। আপনি চাইলে একদম লো কোয়ালিটি তে খেলতে পারেন তবে বেশিক্ষন খেললে কিছুটা ল্যাগি ল্যাগি ভাব পাওয়া যায়। কিন্তু Temple run কিংবা asphalt nitro 9 এর মতো গেমগুলো অনায়াসে চলবে। এবং ফোন টি তে ফ্রি ফায়ার খেলতে পারবেন অনেক সহজেই। কোনো সমস্যা হবে না। তবে ঐ যে বললাম হ্যাভি ইউজে ল্যাগি ল্যাগি ভাব পাবেন।

ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে 6000 mAh এর বিশাল ব্যাটারি। আর ফোন টির ব্যাক আপ পাওয়ার টা খুব ই ভালো, যা আপনাকে খুব ভালো একট ব্যক আপ দিবে। এবং আপনি এটাতে সন্তুষ্ট থাকবেন। আপনি যদি হেভি ইউজার ও হয়ে থাকেন তবুও ২দিনের মতো ব্যাটারি ব্যাকআপ পেয়ে যাবেন সাধারণ ইউজার হলে ৩-৫ দিন ব্যাকআপ পাবেন। এছাড়াও ফোন টির বক্সের মধ্যে পেয়ে যাবেন ১০ ওয়াটের চার্জার, এটি দিয়ে ফুল চার্জ করতে ৪ ঘন্টার মতো সময় লাগবে।

2nd : Realme C25s

এই গত ১ মাস আগে এই Realme C25s ফোনটি লঞ্চ করা হয়েছে। এই ফোনটি ২ টি ভ্যারিয়েন্ট এ লঞ্চ হয়েছে। একটি ৪ জিবি র‍্যাম ও ৬৪ জিবি স্টোরেজ এবং অপরটি ৪ জিবি র‍্যাম ও ১২৮ স্টোরেজ এই ২ টি ভ্যারিয়েন্টে বাংলাদেশের মার্কেটে লঞ্চ করা হয়েছে। ৪ জিবি র‍্যাম ও ৬৪ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্ট ফোনের মূল্য বর্তমানে ১৪,৪৯০ টাকা মানে ১৫,০০০ টাকা। তবে আপনারা যদি দারাজ থেকে ৪/৬৪ জিবি ফোন টি কিনেন তাহলে পাবেন ১৩,৪৯০ টাকায় মানে ১০০০ টাকা ছাড়ে।

এই ফোনটি অনেক শক্ত – পক্ত একটি ফোন এবং বেশ ভাড়ি ও বটে। যার ওজন হলো ২০৯ গ্রাম। ফোনটি কিছুটা মোটা। ফোনটি মোটা হওয়ার কারণ এতে রয়েছে 6000mAh এর ব্যাটারি। যার কারণে ফোনটি একটু মোটা দেখতে হয়েছে। তবে এই ফোনটির সাথে আপনি অভ্যাস্ত হয়ে যাবেন খুব শিঘ্রই।

ফোনটির পেছনের রেয়ার প্যানেল সম্পুর্ন প্লাস্টিক বিল্ডের তৈরি আর এটাই স্বাভাবিক। ফোনটির রেয়ার প্যানেল এ কোনো ভিন্ন ডিজাইন দেখা যায় নি। ঠিক আগের মতোই রয়েছে। তবে ফোনের রেয়ার প্যানেল খুব ই মজবুত। তার পর ও আমার সাজেস্ট থাকবে আপনি একটি ফোন কভার কিনে নিতে পারেন।

সাধারণ ফোন গুলোর মতোই এই ফোনের ডান সাইডে রয়েছে ভলিউম বাটন এবং পাওয়ার অন – অফ বাটন। এবং হাতের অনুযায়ী সেটা একদম ঠিক ঠাক যায়গায় রয়েছে। এবং বাম সাইড দেখতে পাবো আমরা সিম এবং মেমোরি স্লট। ফোনটির উপরের দিকে একদম ক্লিন রাখা হয়েছে। সেখানো কোনো প্রকার কিছু নেই। নিচের দিকে রয়েছে 3.5 mm এর একটি ইয়ারফোন জ্যাক, মাইক্রো, চর্জিং লাইন এবং স্পিকার।

এবার কথা বলা যাক এর ডিসপ্লে নিয়ে। এই ফোনটিতে রয়েছে 6.5 inches IPS HD+ এর ডিসপ্লে। এটি একটি এইচডি ডিসপ্লে। এর ব্রাইটনেস মোটামুটি ভালো। এই বাজেট অনুযায়ী এই ডিসপ্লে মেনে নেওয়া যায়। কিন্তু কোম্পানি চাইলে আরো ভালো দিতে পারতো। এতে ফোনটি দেখতে আরো বেশি দারুন লাগতো।

যাই হোক এই যে ডিসপ্লে এই থেকে মোটামুটি ভালোই রেজাল্ট পাওয়া যাবে। আবার এর ব্রাইটনেস ও খুব একটা খারাপ নয়। আর ডিসপ্লে টাচ সিস্টেম টাও খুব ভালো। যাই হোক এই বাজেটে এই ডিসপ্লে অনুযায়ী সব ঠিক ঠাক ই আছে।

রিয়েল্মি C25s বাংলাদেশে ৪ জিবি র‍্যাম ৬৪ জিবি স্টোরেজে লঞ্চ করা হয়েছে। প্রসেসর হিসেবে রয়েছে Helio G85 Gaming Processor. অপারেটিং সিস্টেম এ রয়েছে এন্ড্রয়েড ১১। এই যে প্রসেসর রয়েছে সেটা মোটেও নতুন না। এর আগেও অনেক ফোনে এই প্রসেসর ব্যাবহার করা হয়েছে। কিন্তু এই প্রসেসর টা গেমিং এর দিক থেকে খুব ভালো একটা রেজাল্ট দিয়ে থাকে। এবং রেগুলার কাজের ক্ষেত্রেও বেশ ভালো পারফরম্যান্স দেয়। তবে হ্যাভি ইউজে কিছুটা ল্যাগ হতে পারে।

এবারে হলো আসল বিষয়। গেমিং এটা কেমন পারফরম্যান্স দিয়েছে। এই ফোন টি বানানো ই হয়েছে গেমের জন্য। এই ফোনে পাবজি HD হাই কোয়ালিটি তে খেলা সম্ভব। হাই গ্রাফিক্স যেকোনো গেম এই ফোনে রাম করানো যাবে। কোনো ল্যাগ ছাড়াই। তবে খেলার সময় ফোনটা একটু গরম হলে কিছুটা ল্যাগি ল্যাগি ভাব পাওয়া যায়। তবে আপনি যদি গেম একটু লো কোয়ালিটি তে রাখেন তাহলে ভালো রেজাল্ট পাওয়া সম্ভব। ফ্রি ফায়ার গেম তো বিনা ঝামেলায় আরামসে খেলা যাবে। তো ফোনটির গেমিং দেখে আমার মনে হয়েছে যারা পাবজি / ফ্রি ফায়ার খেলেন তাদের অনায়াসে এই ফোনটি সন্তুষ্ট করতে পারবে। হ্যাভি ইউজেও ফোন বেশি গরম হয় না। এবং এরই সাথে ব্যাটারি ব্যাক আপ ও খুব ভালো পাবেন। যারা বেশিক্ষন গেম খেলেন তাদের জন্য এই ফোনটি একটি আদর্শ ফোন হতে পারে। এই বাজেটে গেমিং এবং পারফরম্যান্স এ সবাই সন্তুষ্ট হবে।

ফোনটিতে রয়েছে ৩ টি ক্যামেরা সেট আপ। ৩ টি ক্যামেরাই যথাক্রমে ১৩, ২,২ মেগাপিক্সেলের এবং সাথেই রয়েছে একটি ফ্ল্যাস লাইট। তো এর যে ক্যামেরা সেটা আমার মতে আরেকটু ভালো হতে পারতো। এমনিতেই ফোনটির ক্যামেরা মোটামুটি ভালো রেজাল্ট দিবে। তবে আহমাড়ি কোনো রেজাল্ট দিবেন না। তাছাড়া ক্যামেরা গুলো আরো ভালো হতে পারতো।

ফোনটিতে রয়েছে 6000mAh এর একট ব্যাটারি। যা আপনাকে খুব ভালো একটা ব্যাক আপ দিবে। ফোনটির বক্সে রয়েছে ১৮ ওয়ার্টের চার্জার। এর ব্যাটারি ব্যাক আপ এক কথায় অসাধারণ। আপনি যদি হ্যাভি ইউজার হন তাহলেও অনায়াসে ২ দিন পার করে দিতে পারবেন। ব্যাটারি বড় হওয়ায় চার্জ হতে ৩-৩ঃ৩০ ঘন্টা সময় লাগবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button