Android Review

Redmi Note 10 & Itel Version 2 plus ফোনের সম্পুর্ন বাংলা রিভিউ

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সকলে অনেক ভালো আছেন। আপনাদের কে আবারো TechTunar.com এ স্বাগতম। আজকে আমি আপনাদের সাথে ২ টি দারুন ও নতুন এন্ড্রয়েড ফোনের রিভিউ নিয়ে হাজির হয়ে গেলাম। তো চলুন দেখে নেই কোন কোন ফোন রয়েছে আমার আজকের এই লিস্টেঃ

1. Redmi Note 10 Pro
2. Itel Version 2 plus

Redmi note 10 pro

বাংলাদেশি বাজারে বেশ কিছুদিম আগে ৬ জিবি র‍্যাম ও ৬৪ জিবি স্টোরেজ এ লঞ্চ করেছে রেডমি নোট ১০ প্রো। ফোন টির দা ২৬,৯৯০ টাকা মাত্র। ফোন টি কিছু কিছু যায়গা খুব একটা ভালো না আবার কিছু কিছু যায়গা অনেক ভালো অন্য ফোন এর থেকে। তাই যারা এই ফোন টি কিনবেন, তারা কেনার আগে একবার হলেও ফোন টির রিভিউ দেখে নিন। তাহলে বুঝতে পারবেন কাদের জন্য এই ফোন টি নয়, এবং কাদের জন্য এটি বেস্ট। ফোন টি এর রেয়ার প্যানেল দেখতে খুব ই সুন্দর। রেয়ার প্যানেল টি গ্লোসি ফিনিস।

ফোন টি তে পাবেন ২ টি স্পিকার। যা দিয়ে সাউন্ড কোয়ালিটি খুব ভালোই পাবেন। ফোন টিতে রয়েছে ডান সাইড ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার। আর ফিঙ্গারপ্রিন্ট টি খুব তাড়াতাড়ি কাজ করে অন্য ফোন গুলোর তুলনায়। মানে সেখানে আঙুল রাখার সাথে সাথেই ফোন টি অন হয়ে যায়। ফোন টির ডিসপ্লে ৬.৬ ইঞ্চি এর ফুল এইচডি+ রেজুলেশন। ফোন টির ডিসপ্লে খুব ই ভালো। ফোন টিতে আপনারা খুব ভালো ব্রাইট পাবেন। এবং ভিডিও বা গেম খেলার সময় ডিসপ্লে এর ভালো একটি এক্সপেরিয়েন্স পাবেন। টাচ রেসপন্স ও খুব ভালো ফোন টির। ফোনটির অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে রয়েছে এন্ড্রয়েড ১১।

ফোন টিতে যে প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে, সেটা আরো অনেক ফোনেরি ব্যবহার করা হয়েছে। কিন্তু এই ফোনে রেগুলার কাজেও অনেক ঝামেলা পাওয়া গেছে। যেমনঃ কিছু এপ রান হয় না। আবার ইউটিউব থেকে মাঝে মাঝেই আচমকা বের করে দেয়। এটা তো হওয়ার কথা না তাই না? কিন্তু এই ফোনে সেরকম হয়েছে। আমার মনে হয় ফোন টি বানানোর পর কোম্পনি সেটা অপ্টিমাইজিং না করেই বাজারজাত করেছে। তাছাড়া ফোন টি কারণ ছাড়াই গরম হয়ে যায় একটু ব্যবহার এই। ফোন টি তে খুব ভালো এবং শক্তিশালী একটি প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। কিন্তু অপ্টিমাইজিং এর ঘাটতি এর জন্য ফোন টি তেমন একটা ভালো লাগে নি আমার কাছে। তবে আশা করা যায়, ফোনের পরবর্তী আপডেটে সব ঠিক হয়ে যাবে।

ফোন টিতে খুব ভালো গেমিং পারফরম্যান্স পাবেন। গেম টি তে পাবজি সর্বোচ্চ হাই গ্রাফিক্স এ খেলা যাচ্ছিলো। কোনো সমস্যা ছাড়াই। তবে ফোন গরম হয়ে গেলে কিছুটা ল্যাগি ল্যাগি ভাব পাওয়া যায়। তবে Asphalt 9 গেম খেলার সময় গ্র‍্যাফিক্স ভালো পাওয়া যায় নি এবং বার বার ল্যাগ ও হ্যাং হচ্ছিলো ফোন টি।

ফোন টিতে আপনারা পাবেন মোট ৪ টি ক্যামেরা। ৩ টি রেয়ারে ও বাকি ১ টি সেলফি ক্যামেরা। ফোনটির রেয়ারের মেইন ক্যামেরা ১০৮ মেগা পিক্সেলের। এবং এই ক্যামেরা দিয়ে সত্যিই খুব ভালো এক্লটি একটি পারফরম্যান্স পাওয়া গেছে। যা এই বাজেটে আর কোনো ফোনে পাওয়া যায় না, সচরাচর। তবে সমস্যা একটাই আপনি ১০৮ মেগা পিক্সেলের মেইন ক্যামেরা দিয়ে কয়েকটি ছবি তুললেই দেখবেন সেটা মারাত্নক লেভেলের গরম হয়ে যাচ্ছে। যা আমি আগেও বলেছি। তবে ক্যামেরা রেজাল্ট নিয়ে এ বাজেটে সকলেই সন্তুষ্ট থাকবেন।

এই ফোনে ব্যাটারি রয়েছে ৫০২০ মিলিয়াম পাওয়ার এর। আর ফোনের বক্সে পাবেন ৩০ জি ওয়ার্টের একটি চার্জার। যা দিয়ে ফুল চার্জ হতে প্রায়, ১ ঘন্টা ৭-৮ মিনিটের এর মতো সময় লাগবে। এবং ব্যাটারি ব্যক আপ পাবেন খুব ভালো। প্রায় ১ দিন তবে হ্যাভি ইউজার রা ১ দিনের মতো পাবেন না। তবে দিনে ২ বার চার্জ দিলে পুরো দিনের ব্যক আপ পেয়ে যাবেন। এছাড়াও ফোনে ভয়েস কলে কথা বলা, ইন্টারনেট ব্যবহার করা হয়েছে। আর রেজাল্ট খুব ভালো পাওয়া গেছে।

Itel Version 2 plus

দেশের বাজারে কিছুদিন আগেই ৩ জিবি র‍্যাম ও ৬৪ জিবি স্টোরেজে লঞ্চ হয়ে আইটেল ভার্সন ২ প্লাস। যার মূল্য রাখা হয়েছে, ৯,৯৯০ টাকা মানে ১০,০০০ টাকা। ফোন টির রেয়ারে রয়েছে ম্যট ফিনিস। যার ফলে কোনো স্ক্র‍্যাচ বা ফিঙ্গার প্রিন্ট বসবে না। ফোন টিতে পাবেন ফিঙ্গার প্রিন্ট স্ক্যানার ফোনের ক্যামেরা কাছে। ফোন টি খুব একটা ভাড়ি নয় অনেকটা স্লিম। এবং দেখতেও অনেক সুন্দর।

ফোন টির ডিসপ্লে ৬.৮ ইঞ্চি এর ডিসপ্লে। যারা ভিডি বা গেমিং করেন তাদের জন্য এই ডিসপ্লে টা অনেক ভালো লাগবে। ফোনের ডিসপ্লে টা খুব ই কালারফুল। যার ফলে খুব ভালো রেজাল্ট পাবেন। ফোন টির টাচ রেসপন্স খুব ভালো, তবে ব্রাইট নেস টা আউট ডোর এ আর কিছুটা হলে ভালো হতো। তবে ১০,০০০ টাকায় এর থেকে বেশি কিছু আশা করা যায় না।

ফোন টর অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে রয়েছে এন্ড্রয়েড ১০। তবে এন্ড্রয়েড ১১ দিলে আরেকটু ভালো হতো। ফোন টিতে এপ ওপেন – ক্লোস হসে ২-৩ সেকেন্ডের মতো লাগছিলো। তবে আগের আইটেল ভার্সন এর থেকে এটা অনেকটা ভালো আছে।

ফোন টিতে খুব ভালো গেমিং করতে না পারলেও আপনি হাল্কা গেমিং করতে পারবেন। মানে সব কিছু মিডিয়াম গ্র‍্যাফিক্স এ খেলতে পারবেন। আর ক্যামেরা দিয়েও মোটা মুটি ভালো একটি এক্সপেরিয়েন্স পেয়ে যাবেন।

ফোন ব্যবহার করা হয়েছে ৫০০০ মিলিয়াম পাওয়ার এর ব্যাটারি। ফোন টিতে পাবেন ৮ ওয়ার্টের একটি চার্জার। যা দিয়ে ফোন টি চার্জ দিতে সময় লেগেছে ৪ ঘন্টা এর মতো। কিন্তু এই ফোনের ব্যক আপ যথেষ্ট ভালো। আপনি হ্যাভি লেভেলের ইউজার হয়ে থাকলেও অনায়াসে ১.৫ দিনের ব্যক আপ পাবেন। আর রেগুলার ইউজার হলে কম পক্ষে ৩ দিনের ব্যাক আপ পাবেন।

আশা করি পোস্ট ভালো লেগেছে। এবং এমন সব টেক নিউজ পেতে TechTunar.com এর সাথেই থাকুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button