Android Review

POCO C3 ফোনটির সম্পুর্ণ বাংলা রিভিউ

হ্যালো বন্ধুরা আপনাদেরকে TechTunar.com এ স্বাগতম।

আজকে আমি আপনাদের সাথে সব থেকে কম দামি পোকো ফোনের সম্পুর্ন বাংলা রিভিউ নিয়ে হাজির হয়েছি। নতুন এন্ড্রয়েড ফোন কেনার আগে অবশ্যই রিভিউ টি পড়ে নিবেন। তো চলুন পোস্ট টি শুরু করা যাক।

POCO C3

পোকো কোম্পানির তরফ থেকে সব থেকে কম দামি ফোন এটি। এই ফোনটি মূলত যারা কম দামি ফোন খুজে থাকেন তাদের জন্যই বানানো এবং পাবলিশ করা হয়েছে। তো আজকের পোস্টে আমরা যানবো কারা এই ফোনটি কিনবেন! কাদের জন্য ফোনটি ভালো হবে! কাদের জন্য ফোনটি বেস্ট হবে! এবং কারা এই ফোনটি থেকে দূরে থাকবেন।

Price

প্রথমেই আমরা যেনে নিবো এই ফোনটির দাম কতো?
এই ফোনটি মাত্র ১১,৫০০ টাকায় পেয়ে যাবেন। আর এই ফোনটি ই পোকো কোম্পানির সবথেকে কম দামি ফোন। যারা কম দামি ফোন খুজছেন তাদের জন্য এই ফোনটি অনেক ভালো হবে। আর পোকো কোম্পানি কেমন সেটা তো আপনারা যানেন ই।

ফোন বক্সে যা যা পাবেন

ফোন বক্সে আপনারা অন্যান্য ফোন গুলোর মতোই
⇨ মোবাইল ফোন থাকবে,
⇨ ১০ ওয়ার্টের চার্জার থাকবে,
USB ক্যাবল রয়েছে,
⇨ কিছু পেপার (মোবাইল ইউজিং বুক)
⇨ গ্যারান্টি পেপার।
এইতো এগুলোই থাকবে বক্সের ভেতরে।

ফোন Intro

সরা সরি যদি আমরা মোবাইল ফোনটি দেখি তাহলে ডিজাইনের দিক দিয়ে মোবাইল টি বেশ সুন্দর। আর সব থেকে যে বিষয় টা ভালো লেগেছে সেটা হলো এই ফোনটির সাইজ টি। ফোনটি খুব ভালো ভাবেই এক হাতে নিয়ে ব্যাবহার করা যাবে। ফোনটি বেশি মোটা না অনেকটা স্লিপ। এই কারণে হাতের সাথে খুব বেশি ক্ষাপ খায় বা হাতের ভিতর ধরে একটা গ্রিপ পাওয়া যায়। এই স্মার্ট ফোনটির পেছনের কভার টি কিন্তু প্লাস্টিকের তৈরি এবং পেছনের কাভার টি প্লাস্টিকের হবে এটাই স্বাভাবিক। তবে এটি প্লাস্টিকের হলে কি হবে? এর ডিজাইন টা আমার কাছে খুব ভালো লেগেছে। এই ফোনটির পেছনের কভার টির উপরের দিকে রয়েছে গ্লোসি ফিনিক্স এবং নিচের দিকে রয়েছে ম্যাট ফিনিক্স। যার দরুন ফোনটি দেখতে বেশ সুন্দর লাগে পেছন দিক দিয়ে। তাছাড়া পেছনে রয়েছে সুন্দর একটি পোকো ব্যান্ডের লোগো এবং তার উপরে রয়েছে ক্যামেরা। আর ক্যামেরা টি দেখতে প্রায় Redmi 9C এর মতো অনেকটা।

Phone Side Parts

ফোনটির ডান সাইটে রয়েছে বাটন হিসেবে পাওয়ার অন / অফ বাটন এবং ভলিউম বাটন। উপরের দিকে রয়েছে ৩.৫ mm এর একটি ইয়ারফোন জ্যাক। নিচের দিকে দেওয়া হয়েছে মাইক্রো পোর্ট, চার্জিং পোর্ট এবং স্পিকার।

Display

এবার চলে আসি ফোনটির ডিসপ্লে তে। ফোনটিতে ব্যাবহার করা হয়েছে 6.43 inches IPS LCD যা HD+ ফোনের মতো। এবং এতে ব্যবহার করা হয়েছে 270 ppi density .. তো এউ বাজেটে ফোনটি HD+ হবে এটা খুব স্বাভাবিক। এবং এটাকে আপনি মেনেও নিতে পারবেন। এই ফোনটি কিন্তু বেশি বড় না। মাত্র 6.43 ইঞ্চি এর। সেই হিসেবে HD+ এর ঘাটতি মজে হচ্ছিলো না। ফোনটির সামনের দিক দিয়েও দেখতে বেশ ভালোই লাগে। ফোনটিতে আপনারা অনেক বেশি ব্রাইট (আলো) পেয়ে যাবেন। এবং আমি ফোনটির টাচ রিপ্লেস খুব ভালোই পেয়েছি। খুব একটা সমস্যা আমি পাইনি। এই ডিসপ্লে টা হলো Panda Glass এর। তারপরেও আমি বলবো আপনি এই ফোনটি কিনে থাকলে অবশ্যই একটি গ্লাস প্রটেক্টর ব্যবহার করবেন। কারণ সেটি যাই হোক না কেনো একটি কাচের গ্লাস। তাই প্রটেকশন ইউজ করাই বেটার বলে আমি মনে করি। যাই হোক, ফোনটি নিয়ে আপনি সন্তুষ্ট থাকবেন। বা থাকার মতোই যা এই বাজেটে পাওয়া যাচ্ছে।

Performance

এবার কথা বলা যাক এর পারফরম্যান্স নিয়ে। এই মোবাইল টি ২ টি ভ্যারিয়েন্ট এ লঞ্চ করা হয়েছে। ফোনটির স্টোরেজ হিসেবে দেওয়া হয়েছে ৩২ জিবি ইন্টারন্যাল স্টোরেজ, ৪ জিবি র‍্যাম। ফোনটিতে ২ টি সিম কার্ড ইউজ করতে পারবেন। এর পাশাপাশি আপনি ফোনে মেমোরি কার্ড ও ব্যাবহার করতে পারবেন। ফোনটিতে গ্যামিং পারফরম্যান্স মোটামুটি পেয়ে যাবেন। তবে পাব্জি এর মতো গেম গুলো মাঝে মাঝে হ্যাং করতে পারে। তাছাড়া এই ফোনটির প্রসেসর বাকি কাজ গুলো যেমনঃ ব্রাঊজিং খুব ভালো ভাবেই করতে পারবে।

যারা ফেসবুক, হোয়াটসএপ, ভিডিও দেখা, ইত্যাদি কাজ যারা করে থাকেন। মানে একজন স্বাভাবিক ইউজার যে কাজ করে থাকে সেই কাজ গুলো এই ফোন এর সাহায্য বিনা ঝামেলাতেই করতে পারবেন।

Camera

আসা যাক এবার এই ফোনের ক্যামেরা নিয়ে। ফোনটিতে রয়েছে ৩ টি ক্যামেরা সেট আপ। কিন্তু দেখে মনে হয় ক্যামেরা মোট ৪ টি কারণ ফোনের ৩ টি ক্যামেরার সাথে রয়েছে ১ টি ফ্ল্যাস লাইট। ক্যামেরা গুলো যথাক্রমে
⇨ 13 MP, f/2.2, 28mm (wide), PADF
⇨ 2 MP, f/2.4, (marco)
⇨ 2 MP, f/2.4 (depth)

এবং ক্যামেরা গুলোর সাথে রয়েছে একটি ফ্ল্যাস লাইট। ফোনটির সামনের ক্যামেরা মানে সেলফি ক্যামেরা হিসেবে দেওয়া হয়েছে ৫ মেগা পিক্সেলের ক্যামেরা।

যা দিয়ে মোটামুটি ভালো ফটো তোলার এক্সপেরিয়েন্স পাবেন।

Battery

ফোনটিতে রয়েছে 5000mAh এর একটি ব্যাটারি। এতবড় ব্যাটারি দেওয়ার পরেও ফোনটা বেশ স্লিম রয়েছে যার কারণে আপনাদের এটা ভালো লাগবে। এবং রয়েছে ১০ ওয়ার্টের চার্জিং পোর্ট। এবং এই ফোনটিতে ১০ ওয়ার্টের চার্জার পর্যন্তই সাপোর্ট করবে। আর এই চার্জার টি ফোনের বক্সেই পেয়ে যাবেন।

ফোনে ফুল চার্জ নিতে ২ঃ৩০+ ঘন্টা সময় লাগতে পারে। আর ব্যাটারি ব্যাক আপ ১ দিনের মতো পেয়ে যাবেন খুব সহজেই।

User Comment

ফোনটি ব্যাবহার করে ইউজার রা বেশ সন্তুষ্ট হয়েছেন। যারা মিডিয়াম ইউজ মানে ব্রাউজিং, ফেসবুকিং এর পাশাপাশি একটু – আকটু গেম খেলে থাকেন তাদের জন্য এই ফোনটি বেস্ট চয়েজ। কিন্তু যারা হ্যাভি ইউজ করেন মানে বেশি গেম বা স্বাভাবিক ইউজের তুলনায় বেশি ফোন ব্যাবহার করেন, বেশি পরিমান হাই গ্রাফিক্স গেম খেলেন তাদের এই ফোন টি না কেনাই ভালো। তবে যারা ইউটিউবিং করেন তারা এই ফোন দিয়ে বেশ ভালো একট ব্যাক আপ পাবেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button